CBCS PATTERN KALYANI UNIVERSITY 2ND SEM LCC SUGGESTIONS BENGALI SRI KRISHNA KIRTAN KABYA IN BENGALI

sri krishna kirtan kabya in bengali Kalyani University


প্রঃ তুর্কী বিজয়ের ভঙ্গুর সমাজ-অর্থনীতি, ধর্মীয় জীবনের উপর ভিত্তি করে যে সাহিত্য


রচিত হয় তার নাম কি? রচয়িতা কে? 


উঃ শ্রীকৃষ্ণকীর্তন, রচয়িতা বড়ু চণ্ডীদাস৷


Bengali কাব্য  সাহিত্যের suggestions Question 

প্রঃ বড়ু চণ্ডীদাসের শ্রীকৃষ্ণকীর্তন পুঁথিটি কে আবিস্কার করেন কত খ্রীঃ ? 


উঃ ১৯০৯ খ্ৰীঃ শ্রীযুক্ত বসন্ত রঞ্জন রায় বিদ্বদ্বল্লভ শ্রীকৃষ্ণ কীর্তনের পুঁথিটি আবিস্কার করেন।


প্রঃ শ্রীকৃষ্ণকীর্তনের পুথিটি বসস্ত রঞ্জন রায় কোথা থেকে আবিস্কার করেছিলেন?


উঃ বাঁকুড়া জেলার কাঁকিল্যা গ্রামের দেবেন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়ের গোয়াল ঘর থেকে।


প্রঃ বড়ু চণ্ডীদাসের শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্য নামকরণ কে করেন?


 উঃ বড়ু চণ্ডীদাসের শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্য নামকরণ করেন আবিষ্কর্তা বসন্তরঞ্জন রায়।


প্রঃ শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্যের প্রকৃত নাম কি ছিল?


 উঃ শ্রীকৃষ্ণ সন্দৰ্ব তবে এ নিয়ে সংশয় আছে।


প্রঃ শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্য গ্রন্থটির রচনাকাল কোন সময় ?


উঃ চৈতন্য পূর্ব যুগে, অনুমান চতুর্দশ থেকে ষোড়শ শতকের মধ্যে


 প্রঃ শ্রীকৃষ্ণকীর্তনের বিষয়বস্তু কি?


উঃ শ্রীকৃষ্ণকীর্তনের বিষয়বস্তু হল রাধাকৃষ্ণের প্রণয় কাহিনী।


প্রঃ শ্রীকৃষ্ণকীর্তনের তেরটি খণ্ডের নাম কি কি?


উঃ জন্ম খণ্ড, তাম্বুল খণ্ড, দান খণ্ড, নৌকা খণ্ড, ভার খণ্ড, ছত্র খণ্ড, বৃন্দাবন খণ্ড, বাণ খণ্ড, বংশী খণ্ড, যমুনা খণ্ড, কালীয় দমন খণ্ড, হার খণ্ড ও রাধা বিরহ।


প্রঃ শ্রীকৃষ্ণকীর্তনকে বাংলা সাহিত্যের প্রথম গীতিনাট্য বলা হয় কেন?


উঃ শ্রীকৃষ্ণকীর্তনকে বাংলা কাব্য সাহিত্যের প্রথম গীতিনাট্য বলা হয় কারণ এই কাব্যের সংলাপ গানের আকারে গ্রথিত।


প্রঃ শ্রীকৃষ্ণকীর্তনের চরিত্রগুলির নাম কি? উঃ শ্রীকৃষ্ণকীর্তনের চরিত্রগুলির নাম হল রাধা, বড়াই, কৃষ্ণ।



প্রঃ ঐতিহাসিক ডঃ রাখালদাস বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতে বহু চণ্ডীদাসের শ্রীকৃষ্ণকীর্তনের লিপি কোন সময়ের


 ডঃ রাখালদাস বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতে বহুচন্ডীদাসের শ্রীকৃষ্ণকীর্তনের লিপি চতুর্দশ শতকের।


প্রঃ যোগেশচন্দ্র বিদ্যানিধির মতে বড়ু চণ্ডীদাসের লিপি কোন সময়ের?



 উঃ যোগেশচন্দ্র বিদ্যানিধির মতে বন্ধু চন্ডীদাসের লিপি ষোড়শ শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ল্ড


প্রঃ বাংলা সাহিত্যে মধ্যযুগের কাল সীমা কত? মধ্যযুগকে কটি ভাগে বিভক্ত করা যায় ও কি কি?


উঃ মধ্যযুগে বাংলা সাহিত্যের কালসীমা ১২০১ খ্রীঃ থেকে ১৭৬০ খ্রী: ইউরোপীয়ানদের আগমনকাল পর্যন্ত। এই মধ্যযুগকে মূলতঃ তিনটি ভাগে বিভক্ত করা হয়। যথা আদিমধ্যযুগ, মধ্য মধ্যযুগ ও অস্ত্যমধ্য যুগ।


প্রঃ আদি মধ্য যুগে রচিত বাংলা সাহিত্যের নিদর্শন কি? এই নিদর্শনটির আবিষ্কর্তা কে?



 উঃ আদি মধ্যযুগের বাংলা সাহিত্যের নিদর্শন বড়ু চণ্ডীদাস রচিত শ্রী কৃষ্ণ কীর্তন। শ্রীকৃষ্ণকীর্তন পুঁথিটি বসন্তরঞ্জন রায় বিদ্বদ্বল্লভ মহাশয় আবিস্কার করেন।


প্রঃ বড়ু চণ্ডীদাস রচিত শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্যে কটি খণ্ড আছে।


 উঃ বড়ু চণ্ডীদাস রচিত শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্যে ১৩ টি খণ্ড আছে যথা জন্মখণ্ড, তাম্বুল খণ্ড, দানখণ্ড, নৌকাখণ্ড, ভারখণ্ড, ছত্রখণ্ড, বৃন্দাবন খণ্ড, কালীয়দমন খণ্ড, হারখণ্ড, বালখণ্ড, যমুনা খণ্ড, বংশী খণ্ড ও রাধাবিরহ।


প্রঃ বডু চণ্ডীদাস রচিত রাধা বিরহের উপজীব্য বিষয় কি? উঃ বড়ু চণ্ডীদাস রচিত রাধা বিরহের উপজীব্য বিষয় হল কৃষ্ণরাধার সম্পর্কে উদাসীন কিন্তু রাধা কৃষ্ণকে পাবার জন্যে উন্মত্ত। এমতাবস্থায় বৃন্দাবনে কৃষ্ণ রাধা মিলিত হন। কৃষ্ণ রাধাকে নিদ্রিত অবস্থায় ত্যাগ করে মথুরা গমন করেন ফলে রাধার মনে কৃষ্ণ বিরহের তীব্র জ্বালা উপস্থিত হয়।


প্র: বড়ু চণ্ডীদাসের শ্রীকৃষ্ণকীর্তনে কোন কোন গ্রন্থের প্রভাব লক্ষ্য করা যায়?


 উঃ বড়ু চণ্ডীদাসের শ্রীকৃষ্ণকীর্তনে বিষ্ণুপুরাণ, ভাগবত পুরাণ জয়দেবের গীতিগোবিন্দের প্রভাব লক্ষ্য করা যায়, কবি এর সঙ্গে মিশ্রণ ঘটিয়েছেন লৌকিক কাহিনীকে।



 প্র: পুষ্পিকা কী ?


সাধারণত বই-এর শেষ পৃষ্ঠায় গ্রন্থের নাম, গ্রন্থকারের নাম, গ্রন্থ রচনা ও বই এর অনুকরণকালের নির্দেশ থাকে। একেই পুষ্পিকা বলে। শ্রীকৃষ্ণকীৰ্ত্তন পুষ্পিকা ছিল না। 



প্রঃ শ্রীকৃষ্ণকীৰ্ত্তন কেন কাব্য নাটক?


উঃ কৃষ্ণের ‘শ্রী' বা সৌন্দর্যকে কাব্যের সংহত আবেগে নাট্যবৃত্তে ও ঐক্যে প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে বলে শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্যনাটক। যার সূচনা সংস্কৃত ধ্রুব পদ দিয়ে-লাচারি ও পয়ারে আদি বাংলা কবিতার ছন্দ সুষমায় যা সমুজ্জ্বল।

Kalyani university bengali suggestions paper 2nd semester


প্রশ্ন:-  বড়ু চণ্ডীদাসের শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্যগ্রন্থটি কবে রচিত হয় ? এ বিষয়ে তোমার যুক্তি দেখাও।


ঊত্তর: শ্রীকৃষ্ণকীর্তনের রচনা কবে হয়েছিল তা নিয়ে পণ্ডিতদের মধ্যে মতবিভেদ আছে কারণ গ্রন্থের মধ্যে রচনাকালের কোন উল্লেখ নেই। তবে লিপি বিশারদদের বিচারে কাব্যটি চতুর্দশ ও ষোড়শ শতকে বড়ু চণ্ডীদাসের শ্রীকৃষ্ণকীর্তন রচিত হয়েছে বলে অনেকে মনে করেছেন। বিষয়বস্তুর দিক্ থেকে বিচার করে পণ্ডিতেরা শ্রীকৃষ্ণকীর্তনের সময়কাল নির্ণয় করেছেন, চৈতন্য পূর্ব যুগ্‌কে কারণ বড়ু চণ্ডীদাসের রাধাকৃষ্ণের প্রেমলীলাতে

দেহভাবনা প্রাধান্য পেয়েছে আর চৈতন্য সমসাময়িক বা চৈতন্য পরবর্তীযুগে প্রেমলীলাতে প্রেমতত্ত্বে দেহভাবনাহীন চামেলি’র লাবণ্য বিলাস প্রকাশিত হয়েছে। প্রেমতত্ত্বের এই

স্বরূপ অনুযায়ী পণ্ডিতরা মনে করেছেন, শ্রীকৃষ্ণকীর্তন চৈতন্যপূর্ব যুগে রচিত হয়েছে।


জয়ানন্দ তাঁর চৈতন্যমঙ্গল গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন


“জয়দেব বিদ্যাপতি আর চণ্ডীদাস।

 শ্রীকৃষ্ণ চরিত্র তারা করিল প্রকাশ।”


এই তথ্য অনুসারে চৈতন্যদেব চণ্ডীদাসের রস আস্বাদন করেছেন বলে অনেকে ধারণা করেছেন। এর থেকে মনে হয় গ্রন্থটি চৈতন্য পূর্ব যুগে রচিত হয়। এছাড়া চৈতন্য চরিতামৃত গ্রন্থে কৃষ্ণদাস কবিরাজ লিখেছেন

“বিদ্যাপতি জয়দেব চন্ডীদাসের গীত।

আস্বাদয়ে রামানন্দ স্বরূপ সহিত।।”


এর থেকেও বোঝা যায় শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্যপাঠ চৈতন্যদেব পাঠ করেছিলেন। তাই তা চৈতন্য পূর্ব যুগে রচিত। তবে অনেকের মনে প্রশ্ন উঠেছে শ্রীকৃষ্ণকীর্তনে যে অশ্লীলতা আছে তাতে চৈতন্যদেবের রসাস্বাদন হত কিনা এই মত খন্ডন করে অনেকে বলেছেন।

চৈতন্যদেব ভাবতন্ময় অবস্থায় কোন গ্রন্থ পাঠ করতেন না, পার্বদরা তা পাঠ করে শোনাতেন। ফলে শ্রীকৃষ্ণকীর্তনের অংশ বিশেষের রসাস্বাদন সম্ভব ছিল। তাছাড়া চৈতন্যদের ধর্ম ব্যাকুলতার জন্যে দেহধর্ম বর্ণনাতেও রসাস্বাদন করতেন এরকম প্রমাণ আছে তাই শ্রীকৃষ্ণ কীর্তন চৈতন্যদেবের পক্ষে পাঠ করা সম্ভব ছিল আর যেহেতু এই যুক্তিতে গ্রন্থটি পাঠ করতেন সেইহেতু গ্রন্থটি চৈতন্যপূর্ববর্তী যুগে রচিত বলে মনে করা হয়।

পদাবলী সাহিত্যে রাগানুগা ভক্তি অর্থাৎ শ্রীকৃষ্ণের মাধুর্যময় কোমল কাস্ত চরিত্র বৈশিষ্ট্য পরিস্ফুট হয়েছে তার শ্রীকৃষ্ণকীর্তনে বৈধী ভক্তি অর্থাৎ শ্রীকৃষ্ণের ঐশ্বর্যময়রূপ

পরিস্ফুট হয়েছে সুতরাং বৈষ্ণবপদাবলীর পূর্বে শ্রীকৃষ্ণকীর্তন রচিত হয়েছে বলে পণ্ডিতেরা অনুমান করেছেন। ডঃ সুনীতি কুমার চট্টোপাধ্যায় তাঁর O.D.B.L. গ্রন্থে শ্রীকৃষ্ণকীর্তনের ভাষাকে আদি মধ্যযুগের বলে মনে করেছেন।

উপরোক্ত যুক্তি অনুসারে শ্রীকৃষ্ণকীর্তনের রচনার কাল ও তারিখ না জানা গেলেও গ্রন্থটি চৈতন্যপূর্ব একথা বলে চলে।



একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Thanks For Contact 😊😊

নবীনতর পূর্বতন